:
Days
:
Hours
:
Minutes
Seconds
Author Picture
নির্ঝর নৈঃশব্দ্য

কবি, চিত্রশিল্পী

গুল-এ নগমা
প্রচ্ছদ: নির্ঝর নৈঃশব্দ্য

মির্জা গালিব রচিত নির্বাচিত শায়েরির ভাষান্তর

গুল-এ নগমা

১.
জান দি দি হুয়ি উসি কি থি
হক তো ইয়ে হ্যায় কি হক আদা না হুয়া

যে-প্রাণ দিয়েছি তাকে, সে ছিল তারই দান
পাওনা যা—আসলে তার দিইনি প্রতিদান

 

২.
কিতনা খওফ হোতা হ্যায় শাম কে অন্ধেরো মে
পুছ উন পরিন্দো সে জিন কে ঘর নেহি হোতে

কতোটা ভয় থাকে সন্ধ্যার আঁধারের ভিতর—
শুধাও ওই পাখিদের, যাদের নেই কোনো ঘর

 

৩.
ঘর যব বানা লিয়া তেরে দার পর কাহে বাগ্যার
জানেগা আব ভি তু না মেরা ঘর কাহে বাগ্যার

বানিয়েছি ঘর না বলে যখন দরোজার সমুখে তোমার—
না জানালে তবু কি জানবে না তুমি ঘরের ঠিকানা আমার

 

.
রগো মে দৌড়তে ফিরনে কে হাম নেহি কায়েল
যব আঁখহি সে না টপকা, তো ফির লহু ক্যায়া হ্যায়

শিরার ভিতর যতই দৌড়াক মনে হয় না আমার
কান্না হয়ে যদি চোখে না গড়ায় রক্ত সে কী আর

 

৫.
কয়েদ-এ-হায়াত ওয়া বন্দ-এ-গাম আসল মে দুনো এক হ্যায়
মওত সে পেহলে আদমি গাম সে নাজাত পায়ে কিউ

আয়ু ও দুঃখ, দুইয়ের বন্দী-দশা আসলে এক যেন
মৃত্যুর আগেই মানুষ দুঃখ থেকে মুক্তি পাবে কেন

 

৬.
উমর ভর গালিব ওহি গালতি করতা রাহা
ধুল চেহরে পর থি অওর আয়না সাফ করতা রাহা

সারা জীবন গালিব ওই একই ভুল করে গেছে—
ধূলি ছিল চেহারায় আর সে আয়নাই গেছে মুছে

 

৭.
না থা কুচ তো খোদা থা, কুচ না হোতা তো খুদা হোতা
ডুবায়া মুঝকো হনে নে, না হোতা ম্যায় তো কিয়া হোতা

কিছুই ছিলো না যখন, খোদা ছিল; নাও হতো যদি কিছু, খোদা থাকতো;
আমার থাকাটাই ডুবিয়েছে আমাকে—না থাকলে আমি, কী এমন হতো

 

৮.
হাজারো খাওয়ায়িশে অ্যাইসি কি হার খাওয়ায়িশ পে দম নিকলে
বহুত নিকলে মেরি আরমা লেকিন ফিরভি কাম নিকলে

হাজারও ইচ্ছা এমন—ইচ্ছা পূরণে যেন প্রাণ বের হয়ে যায়
বহু বাসনা হয়েছে পূরণ—তবু মনে হয় কমতি থেকে গেছে হায়

 

৯.
হাল-এ দিল নেহি মালুম, লেকিন ইস কদর য়ানি
হামনে বারহা ঢুন্ডা, তুমনে বারহা পায়া

এ মনের অবস্থা জানা নেই, কিন্তু এই কথা জানা আছে আমার
খুঁজেছি মনটাকে বারংবার, আর তুমিই তাকে পেয়েছ বারবার

 

১০.
ওহ্ আয়ে ঘরমে হামারে, খুদা কি কুদরত হ্যায়
কাভি হাম উনকো, কাভি আপনে ঘরকো দেখতে হ্যায়

সে আমারই ঘরে এলো—খোদার কুদরত, এ কী
কখনো আমি তাকে দেখি, কখনো ঘরটাকে দেখি

 

১১.
আব ম্যায় হু অর মাতমে ইক শহর-এ আরজু
তোড়া জো তুনে আইনা, তিমসালদার থা

এখন আমি আর আমার বিলাপ যেন এক ইচ্ছার শহর
ভাঙলে যে-আয়না, তোমার মুখই ছিল ওই আয়নার ভিতর

 

১২.
বিজলি ইক কৌদ গই, আঁখোকে আগে তো কিয়া
বাত করতে কি ম্যায় লব-এ তিশনা-এ তকরিরভি থা

বিজলি চমকের মতো চোখের সমুখ দিয়ে গেলে চলে তো কী হয়েছে
তোমার সাথে কথা বলার জন্যে ওষ্ঠাধরে তৃষা যে থেকে গিয়েছে

 

১৩.
জান তুম পর নিসার করতা হুঁ
ম্যায় নেহি জানতা দুয়া ক্যায়া হ্যায়

এই প্রাণ তোমাতে করেছি নিবেদন
আমি জানি না প্রার্থনা হয় কেমন

 

১৪.
কাভি নেকি ভি উসকে জি মে, গর আ যায়ে মুঝসে
জাফায়ে করকে আপনে ইয়াদ, শরমা যায়ে হে মুঝসে

যদি কখনো মন জাগে তার আমার ভালো করার কামনায়
তার অতীতের নিঠুরতার কথা মনে করে সে লজ্জা পায়

 

১৫.
থা খোয়াবসে খায়ালকো তুঝসে মুয়ামলা
যাব আঁখ খুল গেয়ি, না জিয়া থা না সুদ থা

তোমার সঙ্গে সঙ্গ ছিল আমার স্বপ্ন কল্পনায়—
যখন আমি চোখ খুললাম লাভ নাই, লোকসানও নাই

 

১৬.
মুহব্বত মে নেহি ফরক জিনে অওর মরনেকা
উসিকো দেখ কর জিতে হ্যায়, জিস কাফিরপে দম নিকলে

প্রেমে তো নেই জীবন আর মরণের কোনো ব্যবধান
তাকে দেখে বাঁচি—যে-বিশ্বাসহীনের তরে যায় প্রাণ

 

১৭.
দিল-এ নাদান তুঝে হুয়া ক্যায়া হ্যায়
আখের ইস দরদকি দবা ক্যায়া হ্যায়

অবুঝ ও মন আমার, কী হয়েছে তোমার
শেষে কী এমন অষুধ আছে এ বেদনার

 

১৮.
খেল সমঝা হ্যায়, কাহি ছোড় না দে, ভুল না যায়ে
কাশ! ইউঁভি হো, কি বিন মেরে সাতায়ে না বানে

খেলা ভেবে সে যেন কোনোখানে ছেড়ে না যায় আমায়, না যায় ভুলে
যদি এমন হয়—আমাকে সে দুঃখ না দিলে তার সুখ না মেলে

 

১৯.
জাহিদ শরাব পিনে দে মসজিদ মে বেঠ কর
ইয়া ওহ্ যাগা বাতা, জাহা খুদা নেহি

মসজিদের ভিতরে বসেই মদ খেতে দাও আমায়
নাহয় সেই জায়গা বলে দাও যেইখানে খোদা নাই

 

২০.
যাতে হুয়ে কহেতে হো কায়ামাত কো মিলেঙ্গে
ক্যায়া খুব, কায়ামাত কা হ্যায় গোয়া কোই দিন অওর

যাবার বেলায় বলে গেলে কেয়ামতের দিন হবে দেখা আবার
ভালো তো এখনো কেয়ামতের দিনটি আছে পড়ে তোমাকে পাবার

 

২১.
ফির তেরে কুচে কো যাতা হ্যায় খায়াল
দিল-এ গুম গাশতা মগর ইয়াদ আয়া

তোমার দেশে আবারও মন আমার ঘুরে ঘুরে মরে
এই মন কবেই গিয়েছে হারিয়ে—তবুও মনে পড়ে

 

২২.
জিন্দেগি ইউঁ ভি ভি গুজার হি যাতি
কিউ তেরা রাহ গুজার ইয়াদ আয়া

জীবনটা তো এমনি করেই ফুরিয়ে যেতো শেষে
তবে কেন তোমার চলে যাওয়া পথ মনে আসে

 

২৩.
শামা বুজতি হ্যায় তু উস মে সে ধুঁয়া উঠতা হ্যায়
শোলা-এ ইশক সিয়াহ পোশ হুয়া মেরি বাদ

দীপ নিভে গেলে পরে তার থেকে ধোঁয়া উঠে যায়
প্রেমানল সাজে কালির পোশাকে আমি না থাকায়

 

২৪.
কোয়ি মেরে দিল সে পুছে তেরি তির-এ নিম কাশ কো
ইয়ে খালিস কাঁহা সে হোতি যো জিগারকে পার হোতা

কেউ আমার মনকে শুধাক এ-বুকে আধবেঁধা তোমার তিরের কথা
এই মধুযাতনা কোথায় পেতাম যদি কলিজা ছিঁড়ে বেরিয়ে যেতো তা

 

২৫.
মেহেরবান হো কে বুলা লো মুঝে চাহে জিস ওয়াক্ত হো
ম্যায় গেয়া ওয়াক্ত নেহি হু ফির আনা সাকুঁ

যখন মন চায় আমায় ডেকে নাও দয়া করে—
আমি গতকাল নই যে পারবো না আসতে ফিরে

 

২৬.
সিনে কা দাগ হ্যায় ও নালা কি লব তক না গ্যায়া
খাক কা রিযক হ্যায় ও কাতরা কি দরিয়া না হুয়া

যে-চিৎকার বেরিয়ে এলো না বুকে তা দাগ হয়ে আছে
যে-জলে নদী হলো না তাকে তো মাটি শুষে নিয়ে গেছে

 

২৭.
দিল হি তো হ্যায়, না সাং ও খিস্ত, দরদসে ভর না আয়ে কিউ
রোয়েঙ্গে হাম হাজার বার, কোই হামেঁ সাতায়ে কিউ

মনই তো, ইট-পাথর তো নয়, কেন ভরে উঠবে না বেদনায়
কাঁদবো আমি হাজারবার, ব্যথা দিয়ে কেন কেউ কাঁদাবে আমায়

 

২৮.
আতা হ্যায় দাগ হসরত-এ দিল-কা শুমার ইয়াদ
মুঝসে মেরে গুনাহ-কা হিসাব অয় খুদা নহ্ মাগ

কত যে বাসনা মনে পড়ে এখনো তো অতৃপ্ত আছে—
আমার পাপের হিশেব চেয়ো না খোদা হে আমার কাছে

 

২৯.
ইয়ে না থি হামারি কিসমত কে বিসাল-এ ইয়ার হোতা
আগার অউর জিতে রেহতে ইয়েহি ইনতেজার হোতা

এ তো আমার কপালেই ছিলো না যে প্রিয় মানুষের সঙ্গে হবে দেখা
দীর্ঘ আয়ু পেতাম যদি—এ-ই হতো আমার একমাত্র প্রতীক্ষা

 

৩০.
চুপকে চুপকে মুঝকো রোতে দেখ পাতা হ্যায় আগর
হাসকে করতে হ্যায় বয়ান-এ শওখি-এ গুফ্তার-এ দোস্ত

চুপে চুপে এসে যদি কেউ আমাকে কাঁদছি দেখে ফেলে
দেখবে হেসে হেসে করছি কথা-বিবরণ নানা ছলে

 

৩১.
ওহ্ ফিরাক অওর ওহ্ বিসাল কাহাঁ
ওহ্ শাব, ওহ্ রোজ, ওহ্ মাহ্, ওহ্ সাল কাহাঁ

সেই বিরহ আর সেই মিলন আজ কোথায় হারালো—
সেই রাত, সেই দিন, সেই মাস-বছর কোথায় গেলো

 

৩২.
খুন হো কে জিগার আঁখসে টপকা নেহি অ্যায় মরগ
রেহেনে দে মুঝে ইয়া কি আভি কাম বহুত হ্যায়

আমার কলিজা রক্ত হয়ে চোখ দিয়ে ঝরে পড়েনি, হে মরণ—
বেঁচে থাকতে দাও আমায়, এখনো অনেক কাজ আছে অপূরণ

 

৩৩.
সাবিত হুয়া হ্যায় গরদনে মিনাপে খুনে খলক
লরজে হ্যায় মৌজে ম্যায় তেরি রফতার দেখ কর

যত আছে খুনের দায় পড়ে এসে মদের কাঁধে—
তোমার ফূর্তি দেখে কেঁপে কেঁপে ঢেউ ভাঙে মদে

 

৩৪.
মুঝ তক কব উনকি বজমমি আতা থা দৌর-এ জাম
সাকি নে কুছ মিলা নেহি দিয়া হো শরাব মে

তার সকাশে কখন হতে পেয়ালাখানি হাতে আমার
ভাবনা হয়, সাকি না যদি কিছু মেশায় মদে আবার

 

৩৫.
যব ম্যায়কদহ ছুটা তো ফির অব ক্যায়া জাগা কি কয়েদ
মসজিদ হো মদরসহ হো কোই খানকাহ হো

পানশালাই যদি না থাকলো তবে থাকা নিয়ে কী হবে কথা বলে
মসজিদ হোক, মাদরাসা হোক কিবা মাজার, যেকোনোটাই চলে

 

৩৬.
হাম থে মরনে কো খাড়ে, পাস না আয়া না সহি
আখের উস শোখকে তারকাশমে কোই তির ভি থা

মরতেই দাঁড়িয়ে ছিলাম আমি, সে-ই এলো না এখানে
ছুড়বে বলে কোনো তির কি তাহলে ছিল না তার তূণে

 

৩৭.
বাজিচায়ে আতফাল হ্যায় দুনিয়া মেরে আগে
হোতা হ্যায় সব রোজ তামাশা মেরে আগে

দুনিয়াটা তো শিশুদের খেলার মাঠ আমার সমুখে—
প্রতিটা দিন কেবল তামাশাই চলে চেয়ে দেখি চোখে

 

৩৮.
ম্যায় অওর বযমে ম্যায় সে ইউঁ তশনাকাম আও
গর ম্যায়নে কি থি তওবা সাকি ক্যায়া হুয়া থা

মদের আসর হতে ফিরে এসেছিলাম আমি পিপাসায় অথির
তওবা না হয় করেছিলাম আমি, কিন্তু কী হয়েছিল সাকির

 

৩৯.
ইন আবলোঁ সে পাওঁ কে ঘাবরা গ্যায়া থা ম্যায়
জি খুশ হুয়া হ্যায় রাহ কো পুরখার দেখ কর

এই পায়ে ফোস্কা পড়েছে দেখে ঘাবড়ে গিয়েছিলাম
কাঁটায় ছাওয়া রাস্তা দেখে তাই প্রাণে আনন্দ পেলাম

 

৪০.
হাম কাহাঁ-কে দানা থে কিস হুনর-মে ইয়াকতা থে
বেসবব হুয়া গালিব, দুশমন আসমাঁ আপনা

কোথাকার জ্ঞানী ছিলাম, কীসের এমন যোগ্যতা আমার
কারণ ছাড়াই ওহে গালিব, শত্রু হলো আকাশ তোমার

 

৪১.
জি ঢুন্ডতা হ্যায় ফির ওহি ফুসরাত কা রাতদিন
বেঠে রেহে তসৌবুরে জানা কিয়ে হুয়ে

পরান আবার খুঁজে-মরে অবকাশের রাতদিনগুলিকে—
থাকতাম বসে যখন প্রিয়ের ভাবনাতে হারিয়ে নিজেকে

 

৪২.
রও মেঁ হ্যায় রখশে উমর কাঁহা দেখিয়ে থামে
নে হাথ বাগ পর হ্যায়, নহ পা হ্যায় রেকাব পর

ছুটছে এ আয়ুর ঘোড়া, দেখি কোথায় থামে
পা আমার নেই পা-দানে, হাত নেই লাগামে

 

৪৩.
জলা হ্যায় জিসম জাহাঁ, দিলভি জল গয়া হোগা
কুরেদতে হো যো আব রাখ জুস্তাজুঁ ক্যায়া হ্যায়

দেহই যেখানে পুড়ে গেছে, হৃদয়ও জ্বলে গেছে হবে—
ছাই হয়ে পড়ে আছে শুধু, খুঁজলে কি আর কিছু পাবে

 

৪৪.
কিঁউ জল গ্যায়া না তাবে রুখে ইয়ার দেখ কর
জলতা হু আপনি তাকতে দিদার দেখ কর

কেন জ্বলে গেলাম না তখন প্রিয়ার রূপচ্ছটায়—
আপন চোখের অনলে এখন জ্বলছি নিজেই হায়

 

৪৫.
নাদাঁ হো জো ক্যাহতে হো কিঁউ জিতে হো গালিব
মুঝকো তো হ্যায় মরনে কি তামান্না কোই দিন অওর

অবুঝ হয়েই বলছো এই, গালিব, বেঁচে আছো কেন
আমার তো আছে মৃত্যু-বাসনা আরো কিছুদিন যেন

 

৪৬.
হ্যায় অওরভি দুনিয়া মে সুখনবর বহুত আচ্ছে
ক্যাহতে হ্যায় গালিব কা হ্যায় আন্দাজে বয়া অওর

সারা দুনিয়ায় রয়েছে আরো ভালো কবি অনেকে
ধরন আলাদা গালিবের—এ কথা বলছে লোকে

 

৪৭.
কলকাত্তেকা জো জিকির কিয়া তুনে হামনাসিন
ইক তির মেরে সিনে মে মারা কে হ্যায়

কলকাতার নাম নিয়েছো সখা হে যখন
এই বুকে তির এক এসে বিঁধেছে তখন

 

৪৮.
না গুল-এ নগমা হুঁ না পরদা-এ শাজ
ম্যায় হুঁ আপনি শিকস্তি কি আওয়াজ

গোলাপ ফোটার সুর নই, নই যে তারের ঝংকার—
কেবলই তো আওয়াজ আমি, নিজেরই ধসে পড়ার

Meghchil   is the leading literary portal in the Bengali readers. It uses cookies. Please refer to the Terms & Privacy Policy for details.

error: Content is protected !!